দ্য পিপল ডেস্কঃ দূষণ রুখতে নয়া উদ্যোগ নিল কেন্দ্র। ২০২৫ সালের মধ্যে সারা দেশে ব্যাটারিচালিত বা ইলেকট্রনিক গাড়ি ব্যবহার বাধ্যতামূলক করার লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় সরকারের নয়া উদ্যোগ । যদিও এ বিষয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে মত বিরোধ থাকলেও ২০২৫ এর মধ্যে রাজ্যে ইলেকট্রিকচালিত গাড়ির সংখ্যা বাড়াতে চায় রাজ্য সরকার।

ইতিমধ্যেই কলকাতা সহ শহরতলীতে চালু হয়েছে বৈদ্যুতিন বাস। একইভাবে আগামী দিনে ব্যাটারিচালিত যানবাহনের সংখ্যা বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য সরকার। ব্যাটারিচালিত গাড়ি নির্মাণ এবং ব্যবহার বাড়াতে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এর মধ্যে এক হাজার কোটি টাকা গাড়ির চার্জিং স্টেশন তৈরির জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে।

এই প্রকল্পে পিছিয়ে নেই রাজ্যও। ইতিমধ্যেই কলকাতা শহরেই ইলেকট্রিকচালিত বাসের জন্য প্রায় আড়াইশো চার্জিং স্টেশন তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাস ছাড়াও ব্যাক্তিগত গাড়ির মালিকরা অত্যন্ত অল্প দামে ওই চার্জিং স্টেশনগুলি থেকে নিজেদের গাড়ি চার্জ দিতে পারবেন। রাজ্য পরিবহন দফতর সূত্রের খবর, এই প্রকল্পের জন্য ২২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

রাজ্যে ব্যাটারি চালিত যানবাহনের চার্জিং স্টেশন তৈরির বরাত পেয়েছে রাজ্য বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থা। সংস্থার এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, প্রতি তিন কিলোমিটার অন্তর একটি করে চার্জিং স্টেশন তৈরির লক্ষ্য নিয়েছে এই সংস্থা। যার মধ্যে ষাটটি জাতীয় সড়কের ওপর তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছে এই সংস্থা। যার মধ্যে ১০ টি থাকবে ভারী যানবাহনের জন্য।

ইতিমধ্যেই শহরে মধ্যে চার্জিং স্টেশন তৈরির জন্য জায়গার সন্ধান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তৈরি হচ্ছে নির্দিষ্ট ট্যারিফ।

পেট্রোল-ডিজেলের তুলনায় বৈদ্যুতিক যানবাহনের দাম বেশী হলেও পরিচালন খরচ অনেক কম বলে জানিয়েছেন সংস্থার মুখপাত্র।মাত্র প্রতি কিলোমিটারে খরচ পড়বে মাত্র ১ থেকে ২ টাকা।সিইএসসি, কলকাতা পুরসভা এবং ক্রেডাই যৌথভাবে এই চার্জিং স্টেশনগুলি তৈরি করবে এমনটাই সূত্রের খবর।

ফ্লাইওভার, এজেসি বোস রোড ফ্লাইওভারের তলায় এবং ঢাকুরিয়ায় একটি বহুতল আবাসনেও এই ধরনের চার্জিং স্টেশন তৈরি করার কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here