আইনজীবী ইমতিয়াজ আইনের জালে

0
23
আইনজীবী ইমতিয়াজ আইনের জালে

দ্য পিপল ডেস্কঃ আইনজীবী ইমতিয়াজ নিজেই জড়িয়ে পরলেন আইনের জালে। তথ্য এবং যোগাযোগ প্রযুক্তির মামলায় লেখক এবং আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।

বুধবার বেলা এগারোটা নাগাদ ইমতিয়াজ -কে থানায় হাজির হওয়ার কথা জানায় পুলিস

তারপরই থানাতেই তাঁকে গ্রেফতার করে বলে অভিযোগ করেন আইনজীবী ইমতিয়াজ -এর ভাই।   

আইনজীবী ইমতিয়াজ পুলিস হেফাজতে

বুধবার আইনজীবী ইমতিয়াজ সকাল ১১ টা নাগাদ আদালতে যাওয়ার জন্য রওনা দে্ন ।

বনানী থানা থেকে ফোন আসে তাঁর কাছে। থানার তরফ থেকে থানায় আসার কথা বলা হয় তাঁকে।

যথারীতি তিনি থানায় গিয়ে উপস্থিত হন।

এরপরই বনানী থানার পুলিস গ্রেফতার করে ইমতিয়াজ -কে। তারপর তাঁকে আদালতে পেশ করে বনানী থানার পুলিস।

এমনটা অভিযোগ জানিয়েছেন ইমতিয়াজ -র ভাই তথ্য প্রযুক্তি আইনে।     

ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মাহমুদের একজন আইনজীবী জানান, বুধবার বিকেলে এই মামলার শুনানি হতে পারে ।

ইমতিয়াজ -কে এখন আটক করে রাখা হয়েছে।

বিষয়টি এখনও প্রত্যক্ষ করে দেখেনি তাঁর ভাই। মূলত বনানী থানাতে তথ্য প্রযুক্তি আইনে সংক্রান্ত মামলা রুজু হয়। সে মামলাতেই তাঁর ভাইকে আটক করা হয়েছে।

এমনটাই মনে করছেন ভাই পারভেজ মাহমুদ ।

খাগড়াছড়ির নেপথ্যে  

আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদ একাধারে কবি এবং লেখক। বছর দুয়েক আগে নিজের ফেসবুক পেজে পার্বত্য চট্টগ্রাম ইস্যুতে সমালোচনায় জড়িয়ে পড়েছিলেন কবি ইমতিয়াজ।

 উক্ত পোস্টের বিরুদ্ধে শফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি খাগড়াছড়িতে তাঁর নামে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে মামলা রুজু করেছিলেন ।

ইমতিয়াজ মাহমুদের নাকি মিথ্যা লেখাসমূহ পড়ে ও দেখে যারা লাইক ও কমেন্ট করে উক্ত লেখাকে সমর্থন করেছেন।

এই কাজের মাধ্যমে দেশের প্রচলিত আইনে বিরুদ্ধাচরণ করেছন।

এমনটাই অভিযোগ করা হয়েছিল তাঁর বিরুদ্ধে।

সেই মামলায় জামিনেই ছিলেন ইমতিয়াজ মাহমুদ । এমনটাই জানিয়েছেন ভাই পারভেজ মাহমুদ।

যদিও পরে সেই জামিন বাতিল হয়ে যায় বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বরিশালে একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে কবি হেনরি স্বপনকে আটক করা নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে তীব্র সমালোচনা হচ্ছে বহুল আলোচিত তথ্য প্রযু্ক্তি আইন নিয়ে।

ইমতিয়াজ -এর আটকের খবরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র সমালোচনা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, এর আগেও সম্পাদক, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীরা তথ্য প্রযুক্তি আইনটি কালো আইন বলে দাবি করে এটি বাতিলের আর্জি জানিয়ে ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here