দ্য পিপল ডেস্কঃ কাশ্মীর নিয়ে ফের আর্ন্তজাতিক স্তরে ধাক্কা খেল পাকিস্তান। আমেরিকা, চীন, রাশিয়ার পর এবার পোল্যান্ডও মুখ ফিরিয়ে নিল পাকিস্তানের তরফে। আসন্ন রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধিত্বকারী দেশ পোল্যান্ডের বিদেশমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে যে, ভারত-পাকিস্তানের কাশ্মীর নিয়ে সমস্যা আলোচনার মধ্যেই সমাধানের চেষ্টা করতে বলা হয়।    

আমাদের WHATSAPP গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন: Whatsapp

৫ই অগাস্ট জম্মু ও কাশ্মীরের ওপর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করা হয়। পাশাপাশি জম্মু ও কাশ্মীরকে ভেঙে দুটি আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল তৈরি করে। একটি জম্মু ও কাশ্মীর, অপরটি হল লাদাখ। এই ঘটনার পরে ভারত-পাকিস্তান দুই দেশের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। ছিন্ন করা হয়েছে সমস্ত রকম পরিষেবা, বানিজ্য, সাংস্কৃতিক সম্পর্ক।

এই ঘটনার পরই পাকিস্তান থেকে বহিষ্কার করা হয় ভারতের হাই কমিশনার অজয় বিসারিয়াকে। কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে সরগরম ছিল পাক অধিবেশনও। সেখানে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে ফের একবার পুলওয়ামা ঘটনার পুনরাবৃত্তি হওয়ার ইঙ্গিত দেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এছাড়া রাষ্ট্রসংঘে কাশ্মীর নিয়ে সরব হলেও, সেখানে মুখ থুবড়ে পড়ে পাকিস্তান। এমনকি পাশে পায়নি পড়শি বন্ধু চীনকে।

কাশ্মীর ইস্যুকে কেন্দ্র করে চীন সফর করেছিলেন পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমদ কুরেশি। সেখানেও কোনও সুফল মেলেনি। কুরেশির চীন সফরের তিন দিন পরেই চীন সফরে যান ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস.জয়শংকর। মূলত লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার পরই চীনও বিরোধ দেখিয়েছিল। তারা ‘সীমান্ত সার্বভৌমত্ব’ বিরোধী মন্তব্য করে।

কিন্তু এই বিষয়ে ভারতের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র সরাসরি জানিয়ে দেন, ভারত অন্য কোনও রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীন বিষয়ে নাক গলায় না। তখন অন্য কোনও রাষ্ট্রেরও ভারতের অভ্যন্তরীন বিষয়ে নাক গলানো উচিত নয়।