দ্য পিপল ডেস্কঃ একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যু ঘিরে রহস্য ঘনীভূত হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে ঠাকুরপুকুর পাত্র পাড়া এলাকায়।
বুধবার সকালে একই পরিবারের ৩ সদস্যের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছে।
প্রাথমিক ভাবে আত্মহত্যা বলেই মনে করা হচ্ছে। পরিবারের সদস্যদের নাম চন্দ্রব্রত মন্ডল, বয়স ৫৬।
মায়ারানি মন্ডল, বয়স ৪৮ এবং তাঁদের একমাত্র সন্তান সুপ্রিয় মণ্ডল, বয়স ২২।
জানা গেছে, সকালে প্রতিবেশীরা ডাকতে গেলে একই ঘরের মধ্যে তিনটি দেহ ঝুল্নত অবস্থায় দেখতে পায়।
সঙ্গে সঙ্গেই খবর দেওয়া হয় ঠাকুরপুকুর থানায়।
দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বিদ্যাসাগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
একই পরিবারের তিনজন কেন এমন চরম সিদ্ধান্ত নিল, কি এমন ঘটনা ঘয়েছিল তা নিয়ে পুলিশ তদন্ত শুরু করছে।
তবে প্রতিবেশীদের সূত্রে জানা গেছে, অনেক জায়গা থেকে টাকা ধার করেছিলেন চন্দ্রব্রত মন্ডল।
পাওনাদারদের চাপে পথ না পেয়ে সপরিবারে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেয়।
তবে ঘটনাটিকে স্বাভাবিক আত্মহত্যার ঘটনা মানতে নারাজ পুলিশ।
তথ্য অনুসন্ধান শুরু করে দিয়েছেন তদন্তকারীরা। শেষবার তাঁদের ফোনে কে ফোন করেছিলেন এবং কাদের সঙ্গে শেষবার কথা হয়েছিল পরিবারের তিনজনের সেটা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।
তিন জনের মোবাইল ফোনই বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।
ফোনের কললিস্ট খতিয়ে দেখা শুরু করেছেন তদন্তকারীরা।
শেষবার যাদের সঙ্গে কথা হয়েছিল পরিবারের তিনজনের তাদের ডেকে জেরা করা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। পাখির ব্যাবসা করতেন তাঁরা।
তিন-চারদিন আগে সব পাখি বিক্রি করে দেন তাঁরা।
পরিকল্পনা করেই আত্মহত্যা বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে।